1. admin@durnitirsondhane.com : admin :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০৬:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ঝিনাইদহ সদর সার্কিট হাউজ এলাকা থেকে হত্যা মামলার প্রধান সহ ০৪ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬ যশোর র‍্যাব -৬ সিপিসি-১ যৌথ অভিযান চালিয়ে হত্যা মামলার আসামি আতিকুর গ্রেফতার। যশোর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান,ভাইস-চেয়ারম্যান বিজয়ী যারা। খুলনায়৷র‍্যাব-৬ কর্তৃক দেশীয় তৈরী ১টি ওয়ানশুটার গান সহ আটক-১ যশোর বেনাপোলে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত মাদক ব্যাবসায়ী আটক, র‍্যাব-৬, ফুলতলা পাবলিকিয়ান’র দায়িত্বে পারভেজ ও তাসনিম। যশোরে সাতদিন ব্যাপী এস এমই পণ্য মেলার উদ্ধোধন বিজিবি’তে চাকুরী দেওয়ার নামে ২ প্রতারক আটক করে যশোর র‍্যাব -৬ যশোর সদর থেকে ১৯,৮০০ পিচ ইয়াবা সহ দুই মহিলা মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে র‍্যাব-৬ যশোর বাঘারপাড়া ও অভয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান এফ এম বিপুল ফারাজী ও সরদার অলিয়ার রহমান বিজয়ী।

গুলিস্তানে ব্যবসায়ীর ওপর কাউন্সিলর আউয়াল-গংয়ের হামলা।

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০২৩
  • ১৩১ বার পঠিত

দুর্নীতির সন্ধানে নিউজঃ রাজধানীর ব্যস্ততম বাণিজ্যিক এলাকা গুলিস্তানে বৃহস্পতিবার বিকালে প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে ব্যবসায়ী নেতা ফিরোজ আহমেদকে হত্যাচেষ্টা চালিয়েছে যুবলীগ নেতারা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আউয়াল হোসেনের নেতৃত্বে স্থানীয় যুবলীগ নেতা মানিক, দিলদার, রুম্মানসহ ১০-১৫ জন তার ওপর হামলা চালায়। বেশ কিছুক্ষণ ধরে হামলাকারীরা রড, হকিস্টিক ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তাকে ক্ষতবিক্ষত করে বীরদর্পে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন যার ভিডিও ফুটেজ রয়েছে।

ফুলবাড়িয়া সুপার মার্কেটের সামনে হামলা চলাকালে এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করে আতংকে ব্যবসায়ীরা। পথচারীদের অনেকেই প্রাণভয়ে ছোটাছুটি করতে থাকে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ফিরোজ আহমেদকে গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়।

তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। কাউন্সিলর আউয়াল ও তার ক্যাডার বাহিনীর মার্কেট দখলচেষ্টা ও চাঁদাবাজির প্রতিবাদে ব্যবসায়ীরা সম্প্রতি রাজপথে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। অভিযোগ করা হয়েছে এর জের হিসাবেই আউয়াল ও তার ক্যাডার বাহিনী ফিরোজ আহমেদকে একা পেয়ে হত্যাচেষ্টা চালায়।

তবে পুলিশ বলছে, হত্যাচেষ্টা নয়, দুপক্ষের মারামারিতে দুজন আহত হয়েছে। পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে গুলিস্তানের জাকের সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ফিরোজ আহমেদ মার্কেট থেকে বের হন। মার্কেটের প্রবেশ পথে আসা মাত্রই সেখানে আগে থেকেই অবস্থান নেওয়া সশস্ত্র ক্যাডাররা রড ও হকিস্টিক নিয়ে তার ওপর ঝাপটে পড়ে। বেশ কিছুক্ষণ ধরে গণপিটুনির স্বীকার হন ফিরোজ,আহতকে ক্ষতবিক্ষত করে ক্যাডার বাহিনী এলাকা ছাড়ে।

এ সময় কাউন্সিলর আউয়ালের নেতৃত্বে ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মানিক, সাংগঠনিক সম্পাদক দিলদার, রুম্মান, মোয়াজ্জেম, শাহীন, সজল, কাউসার,রমজান,মনির,ফেরদৌস লিথো সহ অন্তত ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী হামলায় অংশ নেয়। পুলিশ এগিয়ে গেলে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। ক্ষতবিক্ষত ফিরোজকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ।

নগর প্লাজা ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মাসুদুর রহমান জানান, ‘দীর্ঘ দিন ধরে কাউন্সিলর আউয়াল হোসেন ও তার ক্যাডার বাহিনী মার্কেট দখলের চেষ্টা করে আসছিল। তারা নগর প্লাজা, সিটি প্লাজা ও জাকের সুপার মার্কেটের কার পার্কিংয়ের ইজারার সুযোগ নিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিলসহ বিভিন্ন খাতে চাঁদা আদায় করছিলো।

এ ঘটনার প্রতিবাদে সম্প্রতি ব্যবসায়ীরা কাউন্সিলর আউয়াল ও তার ক্যাডারদের দল থেকে বহিষ্কার ও শাস্তি দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেন পরবর্তিতে আরো কঠোর প্রতিবাদ করবেন বলে ব্যাবসায়ী নেতারা জানায়।

ঢাকা মেট্রোপলিটন লালবাগ জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার জাফর হোসেন বলেন, ‘আহত ফিরোজ আহমেদ জাকের সুপার মার্কেটের ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি। তিনি একটি পক্ষ। আর কাউন্সিলর আউয়াল হোসেন আরেকটি পক্ষ। কাউন্সিলর আউয়াল জাকের মার্কেটের পার্কিং ইজারাদার মর্মে দাবী করেন। বৃহস্পতিবার কাউন্সিলর আউয়াল সিটি করপোরেশনের ম্যাজিস্ট্র্রেট মনিরুজ্জামানকে নিয়ে পার্কিংয়ের জায়গা বুঝে নিতে মার্কেটে যান।এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে মারামারিতে ২ জন আহত হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যবসায়ী জানান, সিটি করপোরেশনের এস্টেট শাখার কর্মকর্তা মনিরুজ্জামানের সঙ্গে কাউন্সিল আউয়াল হোসেনের যোগসাজশ রয়েছে। মাঝেমধ্যেই মনিরুজ্জামান উচ্ছেদ অভিযানের নামে ব্যবসায়ীদের হয়রানী করার অভিযোগ রয়েছে।

বৃহস্পতিবার আউয়াল ম্যাজিস্ট্র্রেট নিয়ে মার্কেটের সামনে আসেন। তখন কাউন্সিলরের দলবল আগে থেকেই সেখানে অবস্থান করছিলো। মনিরুজ্জামান নিজেই ফিরোজ আহমেদকে ডেকে মার্কেটের বাইরে আনেন। বাইরে আসা মাত্রই আউয়ালের ক্যাডার বাহিনী তার ওপর হামলা চালায়। উচ্ছেদ অভিযানের নাটক সাজিয়ে ফিরোজের ওপর পরিকল্পিত হামলা চালানো হয়েছে বলেও ব্যবসায়ীদের অভিযোগ।

এ বিষয়ে জানতে কাউন্সিলর আউয়াল ও মনিরুজ্জামানের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তারা কেউ রিসিভ করেননি।সন্ত্রাসী আউয়ালের হাতে নির্যাতিত ও জিম্মি ফুলবাড়িয়া মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।
জানাযায় কাউন্সিলর আউয়াল সাবেক বিএনপি নেতা ছিলেন বর্তমানে দলের খোলশ পাল্টে চালাচ্ছে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সে দিনদিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। বর্তমান আওয়ামী লীগের পরিচয়ে চালিয়ে যাচ্ছে
চাদাঁবাজী সহ সকল প্রকার অপরাধ। পদের অপ-ব্যবহার করে অস্ত্র মামলা সহ একাধিক খুনের মামলা রয়েছে আউয়ালের বিরুদ্ধে।

ব্যবসায়ীর ওপর সন্ত্রাসী হামলায় বংশাল থানায় পরিকল্পিত হত্যা চেষ্টার আইনে মামলা করেছেন ফিরোজ মিয়ার ভাই মীর হোসেন। মামলা নং-০৪ তারিখ ৩/৩/২৩,ধারা ১৪৩/১৪৮/৩২৩/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৩৭৯/৩৪ পেনাল কোড হামলাকারী সন্ত্রাসীদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচার চেয়ে ব্যবসায়ীদের স্বাধীন দেশের স্বাধীনভাবে ব্যবসা করার সুযোগ চাচ্ছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Durnitirsondhane
Theme Customized By Theme Park BD