1. admin@durnitirsondhane.com : admin :
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
অসহায় তিশার বাবার পাশে দাঁড়ালেন সিনেমার নায়ক রাসেল মিয়া বেগমগঞ্জ উপজেলা সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী আনসারীর সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। সাইফুল ইসলাম নোয়াখালী জেলা সংবাদদাতা আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনী উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগের অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের নৌকা প্রতিকে ঐক্য করার লক্ষ্য ও বেগমগঞ্জে উপজেলা আওয়ামীলীগের মনোনয়ন নিতে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেন উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আক্তারুজ্জামান আনসারী। নোয়াখালীতে আবুল খায়ের এন্ড আদার্স এর রিটেলার সম্মেলন এবং অভিবাদন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত। বেগমগঞ্জে পাঁচ শিক্ষক এমপিওভুক্তিতে দুর্নীতি, প্রধান শিক্ষক। ঢাকা ১৮ আসনে আওয়ামী সমর্থীত প্রার্থীকে হারিয়ে সতন্ত্র প্রার্থী কেটলী প্রতিক বিজয়ী। মৌসুমি হামিদকে নিয়ে রাসেল মিয়ার প্রেম। গুলশান বনানী এলাকায় বেপরোয়া অপরাধী চক্র। জুয়েলারী শিল্পের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চায় বাজুস। ইরান এয়ার টু এয়ার ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত ড্রোন উন্মোচন করল কল্যাণ পার্টির ইব্রাহিম বহিষ্কার নতুন কমিটির ঘোষনা।

যশোর মেডিকেল কলেজ হোষ্টেল এখন অঘোষিত টর্চার সেল।

  • আপডেট সময় : রবিবার, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ১৫২ বার পঠিত

দুর্নীতির সন্ধানে:(উৎপল ঘোষ) যশোর মেডিকেল কলেজে হোস্টেল অঘোষিত এখন টর্চার সেল। কিছু অছাত্র এই সেলের মূল হোতা। তাদের নির্যাতনে কয়েক শিক্ষার্থী পড়ালেখা বাদ দিয়ে কলেজ ত্যাগ করেছেন। আবার কেউ কেউ মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন। যাদের নির্যাতনে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে তারা এখনো বীরদর্পে কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ কলেজ কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। এদিকে, ইন্টার্ন চিকিৎসক জাকির হোসেনকে মারপিট করে গুরুতর জখমের তিন দিন পার হলেও এখনো পর্যন্ত তদন্ত শুরু করেনি । যা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আহতসহ অন্যান্য শিক্ষার্থীরা।

এদিকে, জাকির হোসেনের মারপিটের খবর জানাজানি হওয়ার পর বেরিয়ে আসছে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য। অভিযোগ করা হচ্ছে, কলেজ হোস্টেলে কেবল মাদক সেবন করা হয় না সেখানে তৈরি করা হয়েছে অঘোষিত টর্চার সেল। বিভিন্ন সময় শিক্ষার্থীদের ধরে নিয়ে হোস্টেলের ১০৪ নম্বর রুমে মারপিট করা হয় বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।ওই রুমে এর আগেও অনেক শিক্ষার্থীকে অমানসিক নির্যাতন করা হয়েছে।

অনেকে নির্যাতনের ভয়ে পড়ালেখা ছেড়ে পালিয়ে গেছে। আবার কারো কারো মানসিক রোগী হয়ে হাসপাতালে দিনের পর দিন থাকতে হচ্ছে। মেডিকেল কলেজে পুলিশ পাহারা থাকার পরও এসব কর্মকান্ড অব্যাহত রযেছে। শক্তিশালী একটি সিন্ডিকেট এসব কর্মকান্ডের সাথে জড়িত বলে ভুক্তভোগীরা জানিয়েছেন। সিন্ডিকেট সদস্যদের বিরুদ্ধে কথা বললেই টর্চার সেলে নিয়ে চলে রাতভর নির্যাতন। অথচ যারা টর্চারের সাথে জড়িত রয়েছে তারাই নীতিমালা অনুযায়ী, হোস্টেলে থাকতে পারেন না। তারা কোনো ধরনের নির্দেশনাকে তোয়াক্কা না করেই চালাচ্ছে এ ধরনের কর্মকান্ড। বর্তমানে পুরো হোস্টেলে টর্চার আতঙ্ক বিরাজ করছে। এসব কারণে যশোর মেডিকেল কলেজ বিমুখ হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। এ বিষয়ে এখনই পদক্ষেপ না নিলে অবস্থা আরও ভয়াবহ রূপ ধারণ করতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি ইন্টার্ন চিকিৎসক জাকির হোসেন বলেন, তদন্ত কমিটির কেউই এখনো পর্যন্ত তার কাছে আসেননি। বিষয়টি নিয়ে তিনি চরম আতঙ্কে রয়েছেন। জাকির বলেন, ইন্টার্ন চিকিৎসক মেহেদী হাসান লিওন, সাকিব আহমেদ তানিম সহ আরও কয়েকজন তাকে দফায় দফায় মারপিট করেছেন। এমনকি তারা তাকে পানি পান পর্যন্ত করতে দেয়নি। এসব বিষয়ে আরও অন্তত ১০জন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা হলে তারা দুর্নীতির সন্ধানকে জানায় দেড় বছর আগে সাব্বির হোসেন নামের এক শিক্ষার্থীকে ১০৪ নম্বর রুমে আটকে রেখে তিনদিন ধরে নির্যাতন করে একই সিন্ডিকেট। নির্যাতনে সাব্বির মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। এরপর তার পরিবারের লোকজন এসে তাকে যশোর থেকে নিয়ে মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তাকে আর যশোরে পাঠাননি তার পরিবার।
একই সিন্ডিকেট ফয়সাল নামের আরেক শিক্ষার্থীকে মারপিট করে গুরুতর আহত করে। এ ঘটনায় কলেজ কর্তৃপক্ষসহ বিভিন্ন মহলে অভিযোগ দিয়েও কোনো লাভ হয়নি। কেবল সাব্বির কিংবা ফয়সাল না, এমন অনেক শিক্ষার্থীকে কারণে অকারণে ১০৪ নম্বর কক্ষে নিয়ে নির্যাতন চালানো হয়েছে।
সূত্র জানিয়েছে শামীম হোসেনের ইন্টার্ন শেষ হয়েছে ২০১৯ সালে। তিনি বর্তমানে একটি বেসরকারি হাসপাতালের অ্যানাটমি বিভাগে কর্মরত। তার ঘনিষ্ট সহযোগী ১০৪ নম্বর কক্ষে থাকা মেহেদী হাসান লিয়ন। ওই কক্ষেই তাদের মাদকের আড্ডা চলে। তাদের সাথে থাকেন ইন্টার্ন চিকিৎসক আব্দুর রহমান আকাশ, সাকিব আহমেদ তানিমসহ বহিরাগত অনেকেই।
সূত্র জানিয়েছে, তারা সবাই শাহাদত হোসেন রাসেলের অনুসারী। রাসেলের ইন্টার্ন শেষ হয়েছে ২০১৯ সালে। অথচ তিনিও হোস্টেলের ২০৪ নম্বর কক্ষটি দখল করে রেখেছেন।
এসব বিষয় দেখার দায়িত্ব হল সুপারের হলেও তিনি নিজেই দায়িত্ব পালন করতে পারেন না। কারণ সহকারী হল সুপার ফয়সাল কাদির শাওন প্রতিটি বিষয়ে তাকে বাধাগ্রস্ত করেন বলে সূত্রের দাবি। শাওনই মূলত ওই সিন্ডিকেটই আশ্রয় প্রশ্রয় দেন।
এ বিষয়ে তদন্ত কমিটির প্রধান ডাক্তার এন.কে আলম জানান, তাকে যে প্রধান করা হয়েছে তা তিনি লোক মারফত জেনেছেন। লিখিতভাবে তাকে কিছুই জানানো হয়নি। এ কারণে তদন্ত শুরু হয়নি বলে তিনি নিশ্চিত করেন। তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, হোস্টেল সুপার আজম সাকলাইন, সহকারী হোস্টেল সুপার ফয়সাল কাদির শাওন, শান্তনু বিশ্বাস ও প্রভাষক আলাউদ্দিন আল মামুন।
হোস্টেল সুপার আজম সাকলাইন বলেন, ইন্টার্ন শেষ হওয়া ওইসব শিক্ষার্থীকে বারবার হোস্টেল ত্যাগ করতে বললেও তারা শোনেন না। তার কাজে সহকারী হোস্টেল সুপার শাওন বাধাগ্রস্ত করেন কিনা জানতে চাইলে বলেন,‘যা হয়েছে আগে হয়েছে। এখন দেখা যাক কী হয়।’
সহকারী হোস্টেল সুপার ফয়সাল কাদির শাওন অভিযোগ অস্বীকার করেন। কথার এক পর্যায় তিনি নিজেকে হোস্টেল সুপার দাবি করেন। পরে বলেন, ‘মুখ ফসকে বলে ফেলেছি।’

এ বিষয়ে জানতে শাহাদত হোসেন রাসেলের কাছে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।
মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাজাদ জাহান দিহান বলেন, এর আগেও একাধিক বার এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয়ে পুলিশ ও কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ দিয়েও কোনো লাভ হয়নি।
অধ্যক্ষ মহিদুর রহমান বলেন, এর আগে একজন শিক্ষার্থীর ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। তখন তাকে হোস্টেলে না থাকার জন্য পরামর্শ দেয়া হয় কলেজ কর্তৃপক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© All rights reserved © 2022 Durnitirsondhane
Theme Customized By Theme Park BD